religius

হজ্বযাত্রীদের যে বিষয়গুলো জানা থাকতে হবে

  •  Articles প্রবন্ধ
  • Comments Off on হজ্বযাত্রীদের যে বিষয়গুলো জানা থাকতে হবে

মুসলমান হিসেবে একজন ব্যক্তির জীবনে অন্যতম বড় একটি স্বপ্ন থাকে হজ্বে যাওয়ার। তবে আপন দেশ থেকে সেই সুদুর সৌদি আরবে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে কোন রকম বিব্রতকর বা বিপজ্জনক পরিস্থিতি এড়াতে কিছু সতর্কতা ও বিশেষ ব্যবস্থা সবারই অবলম্বন করা উচিত। ভাষার ভিন্নতা, নতুন দেশ, নতুন পরিস্থিতি— এই সকল বিবিধ কারণ একজনকে দুশ্চিন্তায় ফেলতে পারে। তাই দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে একজন হজ্বযাত্রীর কিছু বিষয় সম্পর্কে পরিষ্কারভাবে জানা প্রয়োজন : – পথ হারিয়ে দিশেহারা যাতে না হন তার জন্য সতর্ক থাকুন। পরিচয়পত্র, ঠিকানা সব সময় নিজের কাছে রাখুন। দলবব্ধভাবে বাইরে বের হলে ভালো। – সৌদি আরবে অবস্থানকালে কোনো চাঁদা ওঠানো,  সাহায্য চাওয়া, ভিক্ষা করা দণ্ডনীয় অপরাধ। সুতরাং এগুলো থেকে বিরত থাকুন। – ট্রাফিক আইন মেনে চলুন, সিগন্যাল পড়লে রাস্তা পার হোন। রাস্তা পার হওয়ার সময় অবশ্যই ডানে-বাঁয়ে দেখেশুনে সাবধানে পার হবেন। কখনো দৌড় দেবেন না। – নির্ধারিত স্থানে পশু কিনে অথবা ইসলামি উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবির) কুপন কিনে কোরবানি করা যায়। – মনে রাখবেন, মসজিদে নববী ও কাবা শরিফের সীমানার মধ্যে ধূমপান সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। – শরীরের কোনো স্থান কেটে গেলে অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম ব্যবহার করুন এবং ক্ষতস্থানটি প্লাস্টার কিংবা ব্যান্ডেজ দিয়ে ঢেকে দিন। – হাঁচি কিংবা কাশি দেওয়ার সময় অবশ্যই আপনার মুখ ঢেকে নিন। কোনো ধরনের অসুস্থতা কিংবা দুর্ঘটনায় পড়লে বাংলাদেশ হজ কার্যালয়ের মেডিকেল সদস্যদের (চিকিৎসক) সঙ্গে যোগাযোগ করুন। হারানো হজযাত্রীদের খুঁজে পেতে বাংলাদেশ হজ কার্যালয়ে অবস্থিত আইটি ডেস্ক সাহায্য করে। হজযাত্রীদের যাবতীয় তথ্য দেশের পরিবার-পরিজনের কাছে ই-মেইলের মাধ্যমে পৌঁছানো যায়। – আপনার ট্রাভেল এজেন্সি আপনাকে যথাযথ সুবিধাদি (দেশ থেকে আপনাকে থাকা, খাওয়াসহ অন্য যেসব সুবিধার কথা বলেছিল) না দিলে আপনি মক্কা ও মদিনার বাংলাদেশ হজ কার্যালয়কে জানাতে পারেন। – এতেও আপনি সন্তুষ্ট না থাকলে সৌদির ওজারাতুল হজকে (হজ মন্ত্রণালয়) লিখিত অভিযোগ করতে পারেন। – রোদ থেকে বাঁচতে দিনের বেলায় মিনা ও আরাফাতে ছাতা ব্যবহার করুন। – আরাফাতের ময়দানে অনেক প্রতিষ্ঠান বিনা মূল্যে খাবার, জুস, ফল ইত্যাদি দিয়ে থাকে। ওই সব খাবার আনতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কি হয়, তাই সাবধান থাকবেন। – আরাফাতের ময়দান থেকে যদি হেঁটে মুযদালিফায় আসেন, পথে টয়লেট সেরে নেবেন। কেননা, মুযদালিফায় টয়লেটে অনেক ভিড় লেগে যায়। – হজযাত্রী সচেতন থাকলে হারিয়ে যাওয়ার কোনো ভয় নেই। – মুযদালিফায় রাতে থাকার জন্য প্লাস্টিকের পাটি পাওয়া যায়। এটি মক্কায়ও কিনতে পারবেন।

Comments are closed.