স্যুট বানাতে হলে ...

Reviews

Verified

আপনার পোশাকীতে আভিজাত্য আনতে স্যুট এর কোন বিকল্প পাওয়া দুষ্কর। বর্তমানের ফ্যাশন ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে যে যেকোনো ফর্মাল পার্টিতে বা আনন্দোৎসবে স্যুট পড়া। এক অর্থে বলতে গেলে, বর্তমানে স্যুটকে আভিজাত্যের প্রতীক হিসেবেই ধরা নেয়া হয়। তবে স্যুটের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় রয়েছে যা মেনে না চললে পুরো ইমেজটি নষ্ট হয়ে যায়। এই বিষয়গুলোর প্রতি লক্ষ্য না রাখতে পারলে আপনি হয়ে যেতে পারেন একজন ‘ফ্যাশন ডিজাস্টার’। স্যুট তৈরির ক্ষেত্রে অবশ্যই কিছু ব্যাপারে লক্ষ্য রাখতে হবে। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক জরুরী সেই বিষয়গুলো।

রেডিমেড স্যুট নয়, টেইলর-মেড স্যুট

যদিও অনেক ভালো স্টাইল শপেই স্যুট রেডিমেড কিনতে পারা যায়, তারপরেও স্যুট এভাবে রেডিমেড না কিনে বানিয়ে নেয়াটা অনেক শ্রেয়।আপনার স্যুট একদম নিজের শরীরের মাপমত বানাতে দিন। এর ফলে স্যুট একদম আপনার বডি ফিটিং মত হবে, এবং আরামদায়কও হবে।

রেডিমেড স্যুট এর একটা অসুবিধার দিক হল তা আপনার শরীরে যতো সুন্দরভাবেই ফিট হোক বা মানাক না কেন আপনার শরীরের পুরোপুরি মানানসই কখনোই হবে না। তাই বাজেট ইস্যু যদি না থাকে আর খুব অল্প সময়ের নোটিশে না কিনতে হয় তাহলে রেডিমেড স্যুটের পরিবর্তে সময় নিয়ে ভালো কাপর দিয়ে ভালো করে স্যুট বানিয়ে নিন।

রঙ বেঁছে নিতে হবে বুঝেশুনে

স্যুট বানানোর ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হল রঙ নির্বাচন। ফরমাল ওয়্যার না পার্টি জ্যাকেট কি হিসেবে কোন পরিবেশের জন্য স্যুটটি ব্যবহার করবেন এ সকল বিষয় বিবেচনায় এনে কিছু নির্দিষ্ট রঙ যা শুধুমাত্র স্যুটের জন্যই প্রযোজ্য সেসব রঙগুলোর মধ্য থেকে রুচি ও পছন্দের সাথে মানানসই রঙ বেঁছে নিতে পারেন।

গ্রে, সাদা, নীল, অ্যাশ, কালো, গাঢ় পিত - সাধারণত এই রঙগুলোরই বিভিন্ন শেড থেকেই মানানসই স্যুটের কাপড় বেছে নিতে হবে। এবং তা বাছাই করতে হবে পার্টি এবং প্রফেশনের ক্ষেত্রে আলাদা আলাদাভাবে। তবে এ বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে স্যুটের রঙ খুব বেশি ঝলমলে বা কটকটে না হয়। একই সাথে স্যুটের কাপড়ের রংটিও আপনার শরীরের বর্ণের সঙ্গে মানানসই হতে হবে।

হাতার মাপ হতে হবে একদম সঠিক

একটি স্যুটের মাপ সঠিক কিনা তার যথার্থতা নির্ধারণ করতে পারবেন আপনার স্যুটের হাতার মাপ থেকে। হাতার মাপ বানানো স্যুটের ক্ষেত্রে খুবই ক্রিটিকাল একটি ব্যাপার। আপনার হাতের একদম সঠিক মাপ অনুযায়ী স্যুট তৈরি করতে হবে। আপনার হাতের কবজির নিচে কোন অবস্থাতেই আপনার স্যুটের হাতা যাবে না। আপনাকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে যে, স্যুটের হাতা আপনার শার্টের হাতের মাপের চাইতে একটু খাটো থাকবে; কেননা স্যুটের হাতার সঠিক মাপ হলো যে তা হাতের কবজির ওপরেই থাকবে।

সঠিক মাপ, সুন্দর স্যুট

ভালো কোনো পারদর্শী টেইলর এর কাছে স্যুট বানাতে দিতে হবে; যে কিনা আপনার দেহের একদম যথাযথ মাপ অনুযায়ী সঠিক আকারের স্যুট বানাতে পারবেন। অন্যথায় আপনার মজুরীর টাকা ও স্যুটের কাপড়টিই অপচয় হতে পারে। যে যে মাপগুলোর ব্যাপারে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে সেগুলো হল - হাতের মাপ, কাঁধের মাপ,সঠিক আকারের লম্বা, বুকের মাপ ইত্যাদি। লম্বায় একটু বেশি হয়ে গেলে বা সাইজে একটু খাটো হয়ে গেলেই আপনার স্যুটটি আর পড়ার মত মানানসই থাকবেনা। স্যুটটাই যাতে নষ্ট না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকাই ভালো।

উপযুক্ত স্যুট, দুই বোতামের স্যুট

স্যুটের কয়টি বোতাম থাকবে তা কিন্তু একটি স্যুটের উপযোগিতা নির্দেশ করে; আর এ হিসেবে সবথেকে উপযোগী স্যুট হচ্ছে দুটি বোতামের স্যুট - বর্তমান সময়ের সবথেকে ষ্ট্যাণ্ডার্ড স্টাইল। একেকজনের শারীরিক গড়ন যে রকমই হোক না কেন; সব ধরণের শারীরিক গড়নেই দুই বোতামের স্যুট মানিয়ে যায়। তাই স্যুট বানানোর সময় দুই বোতামের স্যুটের কোন জুড়ি নেই।

প্লেটবিহীন স্যুটের প্যান্ট

স্যুট বানানোর সময় স্যুটের প্যান্টের ব্যাপারে একটি বিষয় অবশ্যই আপনাকে মনে রাখতে হবে যে - সচরাচর ফর্মাল প্যান্টে যে প্লেট থাকে তা কিন্তু স্যুটের প্যান্টে একদমই থাকে না। স্যুটের প্যান্ট হবে কোন রকম প্লেট ছাড়া। সাধারণ ফর্মাল প্যান্টের মধ্যে যে ভাঁজ থাকে তাই হল প্লেট। স্যুটের প্যান্টে এই প্লেটের পরিবর্তে দিতে হবে সোজা ছাঁট।