একদম সহজে যেভাবে পাবেন ড্রাইভিং লাইসেন্স

Reviews

Verified


ড্রাইভিং করতে পারা একটা খুবই ভালো দক্ষতা। তাই ড্রাইভিং শেখাটা খুবই ভালো একটা উদ্যোগ। কিন্তু ড্রাইভিং শিখে ফেলাটাই কিন্তু সব নয়। গাড়ি চালাতে পারলেই হবে না, গাড়ি চালানোর জন্য লাগবে ড্রাইভিং লাইসেন্স। আর না হলে গাড়ি নিয়ে পথে নামলেই কিন্তু পড়বেন বিপদে। তাই বিপদ এড়াতে আর ঝামেলা ঝক্কি না পোহাতে চাইলে আপনাকে আবেদন করে সংগ্রহ করতে হবে ড্রাইভিং লাইসেন্স। আর ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহের প্রক্রিয়ায় জানাচ্ছি আপনাকে :

###যেখানে পাবেন
বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ - BRTA) থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স দেয়া হয়ে থাকে। আপনাকে আবেদন এবং গ্রহন করতে হবে বিআরটিএ-র কার্যালয় থেকেই।

বিআরটিএ এর প্রধান কার্যালয় অবস্থিত ঢাকার মিরপুর ১০ এ।
যোগাযোগের জন্য ফোন নং - ৯০০৩৬৬৬
ওয়েবসাইট – www.brta.gov.bd

###আবেদন পত্র সংগ্রহ

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে হলে আপনাকে প্রথমেই বিআরটিএর কার্যালয় থেকে বা বিআরটিএ এর ওয়েবসাইট থেকে আবেদন পত্র ও মেডিক্যাল সার্টিফিকেট ফরম
সংগ্রহ করতে হবে।

###আবেদন পত্র জমা

সংগ্রহকৃত আবেদন ফরম নিজ হাতে পূরণ করুন। আর মেডিক্যাল সার্টিফিকেটটি একজন রেজিস্টার্ড ডাক্তার এর থেকে পূরণ করিয়ে নিতে হবে।
আবেদন পত্রের সাথে জমা দেয়ার সময় আরো লাগবে এক কপি পাসপোর্ট আর তিন কপি স্ট্যাম্প সাইজের ছবি।
আবেদন পত্রটি জমা আনুষঙ্গিক সবকিছু সহ জমা দিতে হবে বিআরটিএ র কার্যালয়ে।

###লাইসেন্স ফি কত এবং কিভাবে জমা দিতে হবে

আবেদন পত্র জমা দেয়ার সময় নির্ধারিত বিআরটিএ লাইসেন্স ফি ও জমা দিতে হবে। আর এই ফি জমা দিতে হবে সংশ্লিষ্ট পোস্ট অফিসে।
প্রাইভেট কার ও মোটরসাইকেলের জন্য শিক্ষানবিশ লাইসেন্স ফি ৩৪৫ টাকা। তবে শুধুমাত্র প্রাইভেট কারের জন্য শিক্ষানবিশ ফি ২৩০ টাকা।
শুধু প্রাইভেট কারের জন্য অপেশদার লাইসেন্স ফি ২ হাজার ৩ শত টাকা। আর মোটরসাইকেল ও হালকা বাহনের জন্য তা ২ হাজার ৪ শত টাকা।

###শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স
ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন পত্র ও ফি জমা দেয়ার পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এর যথার্থতা যাচাই করবে। এই যথার্থতা বিবেচনা করার পর সাত দিন সময়ের মধ্যে আপনাকে শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স দেয়া হয়, যার মেয়াদ থাকে তিন মাস।

###ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য পরীক্ষা
শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স এর সাথে আপনাকে কর্তৃপক্ষ একটি সময়ও জানিয়ে দিবে, যে সময় অনুযায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য লিখিত, মৌখিক ও ব্যবহারিক পরীক্ষা দিতে হবে।
এই তিনটি পরীক্ষা অনেক ক্ষেত্রে পুরোটাই এক দিনে হয়। অনেক ক্ষেত্রে ভিন্ন দিনেও হতে পারে। তবে পরীক্ষার এক ধাপে পাশ না করলে পরবর্তী ধাপে যাওয়া যায় না। আর আপনি যদি কোন ধাপে পাশ না করেন তবে তার জন্য ১০০ টাকা দিয়ে আবার তারিখ নিতে হবে।

পরীক্ষাগুলোতে উত্তীর্ণ হলেই আপনি পাবেন চাহিদামত ড্রাইভিং লাইসেন্স। তবে হ্যা, একটা কথা মনে রাখবেন, ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে হলে বয়স হতে হবে সর্বনিম্ন ১৮ বছর।