ল্যাপটপ কিনতে বিবেচনা করতে হবে যে ১০ টি বিষয় (৩য় পর্ব)

Reviews

Verified

বহনযোগ্যতা (Portability) ও টেক ফ্যাশন স্টেটমেন্ট এর প্রচলনেই ল্যাপটপ ও নোটবুকের জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। ট্যাবলেট পিসি ও স্মার্টফোন আধুনিকতম হলেও বহুমুখী ব্যবহার ও কার্যক্ষমতার জন্য ল্যাপটপই এখন ডেস্কটপ পিসির বিকল্প। আর ল্যাপটপ কিনতে গেলেই প্রশ্ন আসে কোন ল্যাপটপটি সবথেকে ভালো, কোন ল্যাপটপটিতে রয়েছে প্রয়োজন অনুযায়ী সব ফিচার। এই প্রশ্নের পরিষ্কার কোন উত্তর নেই – বিভিন্ন ধরণের চাহিদার অনুপাতে বিভিন্ন দামে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের ল্যাপটপ। তাই মোদ্দা পরিমান একটা টাকা ল্যাপটপ কিনতে ব্যয়ের পূর্বে, অবশ্যই যে ফিচারগুলো বিবেচনা করে ল্যাপটপ পছন্দ করা উচিত সেগুলো উপস্থাপন করছি আপনাদের জন্য এই শেষ পর্বে -

• ব্যাটারি লাইফ যদিও ব্যাটারি লাইফ দ্বারা একটি ল্যাপটপের পারফরমেন্স বিচার করা যায়না, তবে ল্যাপটপের ব্যাটারি লাইফ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। আপনার স্ক্রিন ডিসপ্লের ভালো রেসলুশন পেতে, অনলাইন ভিডিও স্ট্রিম করতে, কয়েকটি প্রোগ্রাম একসাথে চালাতে বা অনেকগুলো ফাইল ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কে ট্রান্সফার করতে হলে আপনার খুবই শক্তিশালী একটি ব্যাটারি লাগবে।

ল্যাপটপ কেনার আগে ব্যাটারি অবশ্যই জাচাই করে নিন। Watt-hours (Wh) বা milliamp-hours (mAh) মান কত ব্যাটারির তা দেখে নিন। এই নাম্বার এবং ব্যাটারি সেল এর সংখ্যা যত বেশী হবে ব্যাটারিতে চার্জ তত বেশী থাকবে। একটি 13.3” এর আলট্রাবুক ল্যাপটপের জন্য 44Wh থেকে 50Wh এর ব্যাটারি যথেষ্ট।

• ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং এবং ব্লু-টুথ অনেকেই অনেক সময় ল্যাপটপ কেনার সময় এ ব্যাপারটিতে খেয়াল রাখতে ভুলে যান। কিন্তু যেহেতু আমাদের যাবতীয় কাজ করতেই আমাদের ল্যাপটপকে ইন্টারনেট এর সাথে কানেক্টেড করে রাখতে হয়, তাই এটি নিঃসন্দেহে একটি গুরুত্বপূর্ণ ফিচার। আপনার ল্যাপটপের অবশ্যই ডুয়াল-ব্যান্ড ওয়াই-ফাই অ্যাডাপ্টার থাকতে হবে। এতে আপনি ডুয়াল-ব্যান্ড রাউটারের 5GHz এর দ্রুততর নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন।

আর ব্লু-টুথ এর ক্ষেত্রে Bluetooth 4.0 আছে কিনা দেখে ল্যাপটপ কিনুন। শুধুমাত্র ওয়্যারলেস মাউস বা কীবোর্ড কানেক্ট করতেই নয়, ওয়্যারলেস Hi-Fi সিস্টেম কানেক্ট করতেও এটি অত্যন্ত চমৎকার। লোকাল ড্রাইভে বা গুগল প্লে ও অন্য অনলাইন রেডিও পোর্টাল থেকে মিউজিক বাঁজাতে এই ব্লু-টুথ 4.0 অনেক ভালো সার্ভিস দেয়।

• ফুল-সাইজড এসডি কার্ড আপনার কি কি কাজে ফুল-সাইজড এসডি কার্ডের দরকার হয়? ধরুন, আপনি যদি একজন ফটোগ্রাফার হন বা যদি আপনার ফটোগ্রাফির শখ থাকে, তাহলে আপনি ক্যামেরা থেকে ছবিগুলো দ্রুত ল্যাপটপে নিয়ে মেমরি কার্ড ফ্রি করতে সবথেকে ভালো পন্থা হল এসডি কার্ড স্লট। যদিও ডাটা ট্রান্সফারের জন্য এখন ওয়াই-ফাই ব্যবহার করা হয়, কিন্তু এসডি কার্ড ব্যবহারটাই সবথেকে ঝামেলামুক্ত উপায়। যে এসডি কার্ড স্লটগুলোতে কার্ড পুরো ইন্সারট হয়, অর্ধেক বের হয়ে থাকেনা এরকম ল্যাপটপই উত্তম পছন্দ।

• USB 3.0 বর্তমান সময়ে USB 3.0 পোর্ট ছাড়া ল্যাপটপ কেনাই উচিত নয়। আর খুব ভালো হয় আপনি যদি এমন ল্যাপটপ কিনুন যেটাতে একাধিক USB 3.0 পোর্ট আছে। আমাদের নিত্য প্রয়োজনে USB পোর্ট অনেক বেশী ব্যবহৃত হয় – হোক তা ডাটা ট্রান্সফারে কিংবা গেমিং কীবোর্ড ও মাউস ল্যাপটপের সাথে লাগাতে।

স্বাভাবিক ভাবেই, আপনার নিজস্ব কিছু চাহিদা থাকতে পারে এবং নির্দিষ্ট একটা বাজেট এর সমান্তরালে তা পুরন করতে হবে। সব ফিচার সম্বলিত ল্যাপটপ হয়ত আপনি আপনার বাজেটে নাই পেতে পারেন, তারপরও সব বিষয় ও ফিচারগুলো ভালো ভাবে বিবেচনা করে বাজেট আর চাহিদার সব থেকে উত্তম সমন্বয় যে ল্যাপটপটিতে হয় সেটাই কেনা বুদ্ধিমানের কাজ।